ভোটারদের তথ্য সংগ্রহের কাজে কমিশন ৭০ ভাগ সফল | sampadona bangla news
রবিবার , ২৭ মে ২০১৮

ভোটারদের তথ্য সংগ্রহের কাজে কমিশন ৭০ ভাগ সফল

সম্পাদনা অনলাইন : চলমান ভোটার তালিকা হালনাগাদের তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম নিয়ে সন্তুষ্ট নির্বাচন কমিশন (ইসি)। বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটারদের তথ্য সংগ্রহের কাজে কমিশন ৭০ ভাগ সফল হয়েছে বলে দাবি করেছেন ইসি সচিবালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।
বৃহস্পতিবার আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত এক ব্রিফিংয়ের ইসি সচিব বলেন, কোনো তথ্যসংগ্রহকারীর বিরুদ্ধে বাড়ি বাড়ি না যাওয়ার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
বুধবার চলতি বছরের ভোটার তালিকা হালনাগাদের জন্য তথ্য সংগ্রহের কাজ শেষ হয়েছে। আগামী ২০ আগস্ট থেকে নতুন ভোটারদের ছবি তোলাসহ নিবন্ধনের কাজ শুরু হবে।
হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, এ পর্যন্ত নতুন ভোটার হিসেবে আমাদের কাছে অন্তর্ভূক্ত হয়েছে ২৪ লাখ ৩৭ হাজার ৩৩১ জন। মৃত ভোটার কর্তন হয়েছে ১৩ লাখ ৩৩ হাজার ২ জন। ভোটার স্থানান্তর আবেদন করেছেন ৬০ হাজার ৮৭৬ জন। নতুন ভোটারের টার্গেট ছিল ৩৫ লাখ। এর মধ্যে ৭০ ভাগ অর্জিত হয়েছে। শতকরা হিসেবে টার্গেট ছিল ৩ দশমিক ৫ শতাংশ। যার মধ্যে অর্জিত হয়েছে ২ দশমিক ৪ শতাংশ। ২০ শে আগস্ট থেকে তথ্য প্রদানকারীদের নিবন্ধন শুরু হবে। এ কাজে ৫৫ হাজার তথ্য সংগ্রহকারী ও ১১ হাজার সুপারভাইজার নিয়োগ দেয়া হয়েছিল। প্রত্যেক বিভাগে, জেলা উপজেলায় কমিটি কাজ করেছে। ব্যাপক পোস্টার হ্যান্ডবিল বিলি করেছি। মোটামুটি টার্গেট যেটা আশা করেছিলাম তার চেয়ে বেশি অর্জন করেছি।
তথ্য সংগ্রহকারীদের বাড়ি বাড়ি না যাওয়ার বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে হেলালুদ্দীন বলেন, আমরা যদি এরকম অভিযোগ পাই সুনির্দিষ্টভাবে ওই এলাকার যিনি আছেন তথ্য সংগ্রহকারী তার বিরুদ্ধে আমরা অ্যাকশন নেব। কেউ যদি আমাদের বলে এখানে কোনো তথ্য সংগ্রহ করার জন্য কেউ আসে নাই তার বিরুদ্ধে আমরা অ্যাকশন নেব। প্রতিবছর একটা টার্গেট থাকে। আমরা নির্দিষ্ট পরিমাণ তথ্য সংগ্রহ করে থাকি। যতটুকু আমরা পেয়েছি আমরা সন্তুষ্ট।
তথ্য সংগ্রহের সময় বাড়ানো হবে কিনা এ প্রসঙ্গে ইসি সচিব বলেন, কমিশনের এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেই। ভোটার হওয়ার জন্য যথেষ্ট সময় আছে। নির্বাচন অফিসে যোগাযোগ করলে তাদের ভোটার করা হবে। সবসময় তারা এ ভোটার হতে পারবে।
গত ২৫ জুলাই প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা ময়মনসিংহে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য নেয়ার কার্যক্রম শেষ হচ্ছে বুধবার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*