বন্যা দূর্গতদের মাঝে এখনো ত্রাণ পৌঁছাতে পারেনি সরকার : রিজভী | sampadona bangla news
শুক্রবার , ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭

বন্যা দূর্গতদের মাঝে এখনো ত্রাণ পৌঁছাতে পারেনি সরকার : রিজভী

সম্পাদনা অনলাইন : বন্যা দূর্গতদের মাঝে সরকার এখনো ত্রাণ পৌঁছাতে পারেনি বলে অভিযোগ করেছে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রোববার সকালে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রুহুল কবির রিজভী এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, সরকারের মন্ত্রীরা ত্রাণ সহায়তা নিয়ে চিৎকার করলেও বন্যাদুর্গতদের কাছে এখনো সরকারী ত্রাণ পৌঁছায়নি।

রিজভী আহমেদ বলেন, মশক নিধনের ব্যর্থতার কারণে ঢাকা শহরে শুরু হওয়া চিকুনগুনিয়া যেভাবে সারাদেশে মহামারী আকার ধারণ করেছে তাতে জনগণের মধ্যে চরম উদ্বেগ ও আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে।
এ নিয়ে মেয়রদের বক্তব্যে নগরবাসীর মধ্যে দেখা দিয়েছে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া। এছাড়া সরকার দফায় দফায় বিদ্যুতের দাম বাড়িয়ে বড় বড় কোম্পানিগুলোকে অনৈতিক সুবিধা দিয়ে জনগণের পকেট কাটছে সরকার।

জনগণের টাকা আত্মসাৎ করার জন্য শাসকগোষ্ঠী এতোই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে যে, তারা বর্তমান রাজনৈতিক সঙ্কট সমাধানের প্রশস্ত রাজপথের দিকে না গিয়ে চক্রান্তের বদ্ধ চোরাগলিতেই হাঁটছে। এরা ক্ষমতার মোহে অন্ধ।

তিনি বলেন, আপনারা দেখেছেন-রাজধানীতে মশার ব্যাপকতা বেড়ে যাওয়ায় চিকুনগুনিয়া নামক রোগটি এখন মহামারী আকার ধারণ করেছে। অথচ মশক নিধনে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনে শত শত কোটি টাকা ব্যয়ের কথা বলা হয়েছে। এত টাকা ব্যয় হলেও ন্যুনতম মশক নিধন হয়নি, তাহলে টাকাগুলো গেল কোথায় ? মশা নিধনে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ না করে দায়িত্ব এড়িয়ে যেতে লাগামহীন কথাবার্তা বলা হচ্ছে। জলাবদ্ধতা ছাড়াও রয়েছে বিদ্যুতের লোডশেডিংসহ নানা সমস্যা।

রিজভী বলেন, সত্যিকার অর্থে খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি ও বাসস্থানের অভাবে বন্যাদুর্গত মানুষরা এখন মানবেতর জীবনযাপন করছে। বন্যাদুর্গত লাখ লাখ আর্ত নর-নারী শুষ্ককন্ঠে কেবল দুটো ভাত চাইছে, সরকার কত ত্রাণ দিয়েছে সেই পরিসংখ্যান শুনতে চাচ্ছে না। আমি আবারো বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির পক্ষ থেকে দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের স্বচ্ছল মানুষকে ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে বানভাসী চরমকষ্টে নিপতিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানাচ্ছি।

Share on FacebookTweet about this on TwitterShare on Google+Email this to someone

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*