ডায়াবেটিস ও চর্মরোগ | sampadona bangla news
বৃহস্পতিবার , ২৪ মে ২০১৮

ডায়াবেটিস ও চর্মরোগ

সম্পাদনা অনলাইন : ডায়াবেটিস বাড়ছে। এখন প্রায় ঘরে ঘরে ডায়াবেটিস রোগী আছে। ডায়াবেটিস এমন একটি জটিল রোগ যার প্রভাব থেকে আমাদের শরীরের কোন অংশই বাদ থাকে না। ডায়াবেটিস হলো রক্তে শর্করার আধিক্য। এই রোগে রক্তে সুগার বেড়ে যায়। ডায়াবেটিস রোগে রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার কারণে নানা ধরণের জটিলতা তৈরি হয়। আমাদের শরীরের চামড়ায় রক্তের যে প্রবাহ আছে ডায়াবেটিসের কারণে সেখানেও শর্করার পরিমাণ বেড়ে যায়। ফলে নানা রকম চর্মরোগ হতে পারে। জটিলতা শুরু হয়। ডায়াবেটিসের জটিলতা সময় নিয়ে ধীরে ধীরে শুরু হয়। কিন্তু নির্দিষ্ট চর্মরোগ আছে যা সরাসরি ডায়াবেটিস-এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এবং শুধু ডায়াবেটিস রোগীদের এই চর্মরোগ হয়ে থাকে। আবার কিছু চর্মরোগ আছে যা যেকোন লোকেরই হতে পারে। তবে ডায়াবেটিস রোগীদের কিছুটা বেশি হয়। এছাড়া অধিকাংশ চর্মরোগই অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস থাকলে বেড়ে যায় এবং সহজে ভালো হয় না। বিভিন্ন চর্মরোগ থেকে বাঁচতে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখাটা জরুরি ও খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আমাদের দেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গ হল ত্বক। যা সমগ্র দেহকে আবরণ দেয়। আরও বিভিন্ন কাজ আছে ত্বকের। বিশাল এই অঙ্গের ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় ভিন্ন ভিন্ন রূপে সংক্রমণ দেখা দিতে পারে। ডায়াবেটিস হলে এই সংক্রমণের হার বেড়ে যায়। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় বলেই এমন হয়। তাই ডায়াবেটিস রোগীরা বিভিন্ন চর্মরোগে ভোগে থাকেন। গরমকালে এই রোগের প্রকোপ আরো বেড়ে যায়। গরম এবং আর্দ্রতার কারণে সবারই কম বেশি চর্মরোগ হতে পারে। কিন্তু ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষত সহজে শুকায় না। ফলে সমস্যা আরো বেশি জটিল হয়। এছাড়াও যাদের দীর্ঘ দিন ধরে ডায়াবেটিস আছে তাদের ত্বক অন্যদের থেকে শুষ্ক হয়ে যায় এবং চুলকানি সমস্যা বেশি দেখা দেয়।

অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস রোগীদের অনেক ধরণের ত্বকের সমস্যা হয়ে থাকে। আর এ সকল সমস্যা প্রধানত ৩টি কারণে হয়ে থাকে। যেমন-

১. শরীরের রক্তনালীতে চর্বি জমে রক্তনালী সরু হয়ে যায় ফলে রক্তনালীতে রক্ত চলাচল কমে যায়।

২. স্নায়ুতন্ত্র আক্রান্ত হবার ফলে বিভিন্ন অনুভূতি জনিত সমস্যা দেখা দেয়। যেমন-হাত-পা ঝিন ঝিন করা, গরম-ঠান্ডা ও ব্যথার অনুভূতি নষ্ট হয়ে যাওয়া ইত্যাদি। ফলে আঘাত লাগলেও রোগী টের পায়না। সেই আঘাতের স্থান অনেক সময় মারাত্মক হয়ে উঠে।

৩. রোগীদের শরীরের রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি থাকায় রোগ প্রতিরোধ ও জীবানু ধ্বংস করার ক্ষমতা অনেক কমে যায়। সে জন্য ডায়াবেটিস রোগীদের ত্বকে বিভিন্ন ধরণের জীবানু সংক্রমণ তুলনামুলকভাবে বেশি হয়। শরীরের বিভিন্ন অংশে ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাকজনিত চর্মরোগ খুব বেশি হতে পারে।

এছাড়া ডায়াবেটিস রোগীদের বেশ কিছু নির্দিষ্ট ধরণের ঘা ও চর্মরোগ হতে পারে, যা সময়মত ভালভাবে চিকিত্সা না করালে বিভিন্ন জটিলতার সৃষ্টি হতে পারে। পায়ের একটি ছোট ঘা বা ক্ষত থেকে মারাত্মক গ্যাংরিন বা পচন শুরু হয়ে যেতে পারে। তাই ডায়াবেটিস রোগীদের সব সময় খুব সাবধানে চলাফেরা উচিত এবং পায়ের প্রতি বিশেষ নজর দিতে হবে। ডায়াবেটিস রোগীদের হঠাত্ করে ত্বকে একটা ফুসকুরির মতো উঠে পরে তার পরে সেখানে ক্ষত সৃষ্টি হয়। ক্ষত থেকে এক ধরণের হলুদ সেমিসলিড পদার্থ বের হয়। এটাকে নেক্রোবায়সিস বলে। যারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত এই রোগের জন্য তারাই বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। ডায়াবেটিসের ফলে রক্তের নালি সরু হয়ে যায়। এর ফলে সমস্যা সব অঙ্গপ্রত্যঙ্গের ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে। সরু হয়ে যাওয়ার ফলে রক্তের যে পুষ্টি পাওয়ার কথা সেটি আর পায়না। ত্বকের ক্ষেত্রেও সেটি হয়। ত্বক তখন ভুগতে থাকে বিভিন্ন ধরণের রোগে। বিভিন্ন চর্মরোগ থেকে বাঁচতে ডায়াবেটিস থাকলে প্রথমেই তা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে রোগ দেখা দিলে যত তাড়াতাড়ি পারা যায় চিকিত্সকের পরামর্শ নিতে হবে। বিশেষ করে পায়ে বা হাতের ত্বকে রোগ সংক্রান্ত চিহ্ন দেখা দিলেই চিকিত্সকের পরামর্শ নিতে হবে। অনেক সময় রোগীরা গ্যাংরিন এর মতো অবস্থা নিয়ে ডাক্তারের আছেন তখন অনেক সময় পা কেটে ফেলা ছাড়া আর কোন উপায় থাকেনা।

ডায়াবেটিস রোগীেদের নিয়মিত নিজের ত্বকের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। অনেকেই খেয়াল রাখেন না। অনেক সময় এজন্য বড় ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে। এটা বিশেষ ভাবে পায়ের ক্ষেত্রে হয়ে থাকে। পায়ের তলায় অনেক সময় ঘা সৃষ্টি হয় রোগীরা সেটা টের পায়না। কারণ ডায়াবেটিস রোগীদের ত্বকের অনুভূতিও কমে যায়। যার ফলে ক্ষত সৃষ্টি হলে ব্যথা হওয়ার বোধটা পাওয়া যায়না। এই ক্ষত ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে। তাই পায়ে কোন ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে কিনা তা নিয়মিন পরীক্ষা করতে হবে। এ জাতীয় উপসর্গ হলে বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকের কাছে যেতে হবে এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। তার ফলে চর্মরোগসহ নানা জটিলতা অনেক কমে আসছে।

nডা: মো:ফজলুল কবির পাভেল

মেডিসিন বিভাগ

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*