টেক্সটাইল খাতে দক্ষ জনশক্তি নিতে চায় জাপান : বাণিজ্যমন্ত্রী | sampadona bangla news
রবিবার , ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮

টেক্সটাইল খাতে দক্ষ জনশক্তি নিতে চায় জাপান : বাণিজ্যমন্ত্রী

সম্পাদনা অনলাইন : বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, টেক্সটাইল খাতে বাংলাদেশের দক্ষ জনশক্তি নিতে চায় জাপান।এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হবার পরও বাংলাদেশকে দেয়া চলমান বাণিজ্য সুবিধা অব্যাহত রাখবে জাপান।
আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে তার কার্যালয়ে বাংলাদেশে সফররত জাপানের হাউস অব কাউন্সিলর এর সদস্য (এমপি) হিরোসি ইয়ামাদা এবং ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় এসব কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী।
তোফায়েল আহমেদ বলেন, গত ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে বাংলাদেশ জাপানে রফতানি করেছে এক হাজার ১২ দশমিক ৯৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য, একই সময়ে আমদানি করেছে এক হাজার ৮৩৩ দশমিক ৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য। এখন জাপান বাংলাদেশের ৮ম বৃহত্তম রফতানি বাজার। আগামী ২ থেকে ৩ বছরের মধ্যে এ বাণিজ্য ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার দাঁড়াবে।
তিনি বলেন, জাপানের বাজারে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের বেশ চাহিদা রয়েছে। এখন প্রায় ৯০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের তৈরি পোশাক জাপানে রফতানি হচ্ছে। দিন দিন এ চাহিদা বাড়ছে।
তিনি আরো বলেন, এ মহুর্তে বাংলাদেশে জাপানের ৩১২টি কোম্পানি বিনিয়োগ করেছে, এখানে প্রায় ৪২ হাজার জনবল কাজ করছে। জাপানের বিনিয়োগ প্রায় এক হাজার ৪৬৭ দশমিক ২৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোনের যে কোনো স্থানে জাপানি বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের আহ্বান জানানো হয়েছে।
তিনি জানান, জাপানের বাণিজ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারী দল কিছুদিনের মধ্যে বাংলাদেশ সফর করবে। এসময় তারা বিনিয়োগের খাতগুলো চিহ্নিত করবেন। বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার উদ্যোগে ‘ওয়ার্ল্ড এক্সপো-২০২৫’ আয়োজনের জন্য রাশিয়া, জাপান ও আজারবাইজান প্রার্থী হয়েছে। জাপান বাংলাদেশের সমর্থন চেয়েছে। এ বিষয়ে যথাসময়ে বাংলাদেশ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।
তোফায়েল আহমেদ বলেন, জাপানের পর্যবেক্ষণে বর্তমানে বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বেশ ভালো, কোনো নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই। এখন জাপান সরকার সেদেশের নাগরিকদের বাংলাদেশ ভ্রমণের ওপর থেকে বিদ্যমান লেভেল-২ ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
জাপানের এমপি হিরোশা ইয়ামাদা বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রশংসা করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিনত হচ্ছে জেনে তিনি বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিনত হবার পরও জাপান বাংলাদেশের পাশে থাকবে এবং সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে।
ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোইয়াসু ইজুমি এবং বাণিজ্যসচিব শুভাশীষ বসু এ সময় উপস্থিত ছিলেন। বাসস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*