টাইগারের সঙ্গে একই বাড়িতে থাকছেন দিশা! | sampadona bangla news
শনিবার , ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

টাইগারের সঙ্গে একই বাড়িতে থাকছেন দিশা!

সম্পাদনা অনলাইন : মুম্বাইতে যখন এসেছিলেন, তখন নাকি দিশার কোনও বন্ধু ছিলেন না সেখানে। আর সেই কারণেই টাইগার শ্রফের সঙ্গে তার বন্ধুত্ব ক্রমশ শক্তপোক্ত হতে শুরু করে। কিন্তু, টাইগারের সঙ্গে তার কোনও প্রেমের সম্পর্ক নেই।

জ্যাকি-পুত্র তার ভালো বন্ধু বলে বার বার দাবি করেন দিশা। কিন্তু, সম্প্রতি এমন বেশ কিছু খবর সামনে আসতে শুরু করেছে, যা দেখে যে কোনও কারওই টাইগার-দিশার সম্পর্ক নিয়ে মনে প্রশ্ন জাগতে পারে।

সম্প্রতি জানা যায়, জ্যাকি শ্রফের পুরনো বাড়িতেই নাকি এখন একসঙ্গে থাকছেন টাইগার শ্রফ এবং দিশা পাটানি। সেখানেই তাদের প্রেম জমে উঠেছে বলে খবর। বিষয়টি নিয়ে কানাঘুষা শুরু হতেই, টাইগার-দিশার আরও বেশ কিছু ছবি প্রকাশ্যে আসে। যেখানে বলিউডের এই ‘হট’ জুটিকে ফের একসঙ্গে দেখা যায়।

ব্যান্দ্রার একটি রেস্তোরাঁয় একসঙ্গে দেখা যায় টাইগার শ্রফ এবং দিশা পাটানিকে। গোলাপী রঙের পোশাক পরা দিশার সঙ্গে কালো ক্যাজুয়াল পোশাকে দেখা যায় জ্যাকি শ্রফের ছেলেকে।

সম্প্রতি ‘বাগি টু’-তে একসঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করতে দেখা যায় টাইগার শ্রফ এবং দিশা পাটানিকে শোনা যায়, এই সিনেমায় টাইগারের তুলনায় দিশার স্ক্রিন স্পেস বেশ কম ছিল বলেই নাকি বেশ অসন্তুষ্ট হন অভিনেত্রী। যা নিয়ে ঘনিষ্ঠ মহলে তাকে বেশ কিছু মন্তব্য করতেও শোনা যায়।

সিনেমার পরই টাইগার শ্রফ বলেন, দিশা পাটানি অভিনয়ের চেয়ে অন্য জিনিসে বেশি মন দিচ্ছেন। দিশা অভিনয়ের দিকে নজর না দিয়ে যেভাবে বিজ্ঞাপনের শুটিং করে যাচ্ছেন, তা নিয়ে তিনি খুশি নন বলেও প্রকাশ্যে মন্তব্য করেন টাইগার।

এদিকে ‘বাগি টু’-এর পর সলমন খানের ‘ভরত’-এ স্ক্রিন শেয়ার করছেন দিশা পাটানি। পরিচালক আলি আব্বাস জাফর এবং সালমান খানের সঙ্গে একসঙ্গে কাজের সুযোগ পেয়ে তিনি গর্বিত বলেও মন্তব্য করেন দিশা।

দিশা যখন সালমান খানের সিনেমা ‘ভরত’-এর শুটিং নিয়ে ব্যস্ত, সেই সময় ‘স্টুডেন্ট অফ দ্যা ইয়ার’-এর সিক্যুয়েল নিয়ে ব্যস্ত টাইগার শ্রফ। করণ জহরের এই সিনেমায় দিশা পাটানির সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করছেন চাঙ্কি পান্ডের মেয়ে অনন্যা পান্ডে এবং তারা সুতারিয়া। অর্থাৎ, ‘স্টুডেন্ট অফ দ্য ইয়ার’ পার্ট টু-তে দুই নবাগতা অভিনেত্রীর সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করছেন টাইগার শ্রফ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*