জবি শিক্ষার্থী-ব্যবসায়ী সংঘর্ষ ভাঙচুর | sampadona bangla news
রবিবার , ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮

জবি শিক্ষার্থী-ব্যবসায়ী সংঘর্ষ ভাঙচুর

সম্পাদনা অনলাইন : ঘড়ি মেরামতকে কেন্দ্র করে রবিবার দুপুর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পাটুয়াটুলি ঘড়ি ব্যবসায়ীদের সাথে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষের সময় ঘড়ি ব্যবসায়ীদের ছোড়া ইট-পাটকেলের আঘাতে বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থিত অগ্রণী ব্যাংক ভবন, বিজ্ঞান ভবনের জানালার গ্লাস, এসি, বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস ও কর্মচারীদের আবাসস্থল ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পাঁচ লাখ টাকার ক্ষতিপূরণ ও অজ্ঞাত আসামি উল্লেখ করে কোতোয়ালি থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
জানা যায়, রবিবার দুপুর ১২টার দিকে জবির কয়েকজন শিক্ষার্থী পাটুয়াটুলির রাবেয়া ইলিয়াস মার্কেটের মক্কা ১নং ঘড়ির দোকানে ঘড়ি মেরামত করতে যান। এসময় ঘড়ি দোকানীর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থীর কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে দোকানী বিশ্ববিদ্যালয় ওই শিক্ষার্থীকে মারধর করেন। এই ঘটনার জেরে শিক্ষার্থীরা জবির ব্যাংক ভবনের নিচ দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় গেটের মধ্য দিয়ে লাঠিসোটা নিয়ে বের হওয়ার চেষ্টা করলে ওত পেতে থাকা ব্যবসায়ীরা শিক্ষার্থীদের উপর হামলা চালান। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। পরে ব্যবসায়ী ও স্থানীয় লোকজন পাটুয়াটুলি লেন, নুরুল হক টাওয়ারের ছাদ ও রাবেয়া ইলিয়াস মার্কেটের ছাদ থেকে ক্যাম্পাসে অবস্থিত অগ্রণী ব্যাংক ভবন, বিজ্ঞান ভবন, নাট্যকলা, সংগীত বিভাগ উদ্দেশ্য করে ইট পাটকেল ছুঁড়তে থাকে। ইট পাটকেলের আঘাতে অগ্রণী ব্যাংক ভবন, বিজ্ঞান ভবন, নাট্যকলা, সংগীত বিভাগের জানালার গ্লাস, এসি, বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস ও কর্মচারীদের আবাসস্থল ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এসময় ঘটনাস্থলে কোতোয়ালি থানার অতিরিক্ত পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। এসময় এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাংলাবাজর, ইসলামপুর, বাবুবাজার, সদরঘাট এবং জনসন রোডে যানযটের সৃষ্টি হয়।
এবিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক ড. নূর মোহাম্মাদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভবন, বাস, কর্মচারীদের আবাসস্থল ভাঙচুরের ঘটনায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে। আজকে কোতোয়ালি থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
ঘড়ি ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি হাজী আশরাফুল আলম খান নবরাজ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে ঘড়ির ব্যবসায়ীদের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ধাওয়া পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। আমাদের দুইটি দোকানে ভাঙচুর করা হয়েছে।
কোতোয়ালি থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সাথে ঘড়ি ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ দেয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, আমারা কোন অভিযোগ পায়নি। তবে পাটুয়াটুলির ব্যবসায়ীদের সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিন ধরে ঝামেলা চলছে। এটির একটি স্থায়ী সমস্যা সমাধানের জন্য আগামীকাল উভয়পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় বসা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*