'কাঠমান্ডুর বিমানবন্দর থেকে ভুল নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল' | sampadona bangla news
বুধবার , ১৫ আগস্ট ২০১৮

‘কাঠমান্ডুর বিমানবন্দর থেকে ভুল নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল’

সম্পাদনা অনলাইন : বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার কারণ নিয়ে পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দিয়েছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস এবং নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ পাইলটকে দায়ী করলেও এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ দায়ী করছে বিমানবন্দরকে।

ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার কারণ জানতে অনুসন্ধান চলছে। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে উঠে এসেছে এ নিয়ে নানা বক্তব্য।

আলজাজিরাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ত্রিভুবন বিমানবন্দরের জেনারেল ম্যানেজার রাজ কুমার ছেত্রি বলেছেন, বিমানটি নিয়ন্ত্রণকক্ষের নির্দেশনা না মেনে ভুল দিকে অবতরণ করেছে।

এদিকে, ইউএস বাংলার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান আসিফ এই অভিযোগ অস্বীকার করে আলজাজিরাকে বলেছেন, তাদের পাইলটের কোনো দোষ নেই। বরং নিয়ন্ত্রণকক্ষ থেকে ভুল নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিলো।

হিন্দুস্থান টাইমসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নেপালের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের মহাপরিচালক সঞ্জীব গৌতম বলেছেন, দক্ষিণ দিক থেকে অবতরণ করার কথা থাকলেও বিমানটি অবতরণ করেছে উত্তর দিক থেকে।

এদিকে, সংবাদ মাধ্যম সিএনএন এক প্রত্যক্ষদর্শীর উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছে, প্রথমে মনে হয়েছিলো মেঘের কারণে বিমানটি বিমানবন্দরের দক্ষিণ দিক দিয়ে খুব নিচু হয়ে নামছিলো। কিন্তু পরক্ষণেই বিমানটি তার গতিপথ পরিবর্তন করে এবং বিধ্বস্ত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক অনেক গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বিমানটির অবতরণ স্বাভাবিক ছিলো না।

দ্য হিমালয়ান টাইমস জানিয়েছে, এরই মধ্যে নেপালের প্রধানমন্ত্রী খাদগা প্রসাদ শর্মা এ ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। তদন্তের মাধ্যমেই প্রকৃত কারণ জানা যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, ৭১ আরোহী নিয়ে বিধ্বস্ত হওয়ার পর ৫০ জন নিহত হয়। তবে নেপালে বাংলাদেশ দূতাবাস জানায়, নিহতের সংখ্যা ৪৯। এদের মধ্যে কতজন বাংলাদেশি তা জানা যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*