আবুবকর সিদ্দিক অপহরণের সঙ্গে জড়িতদের ধরতে পুলিশ তৎপর | sampadona bangla news
শনিবার , ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

আবুবকর সিদ্দিক অপহরণের সঙ্গে জড়িতদের ধরতে পুলিশ তৎপর

সিদ্দিকসম্পাদনা: অনলাইন। বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসানের স্বামী আবুবকর সিদ্দিক অপহরণের সঙ্গে জড়িতদের ধরতে আদালতে দেয়া তার জবানবন্দির সূত্র ধরে এগোচ্ছে পুলিশ। গতকাল সকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম। ডিএমপির এ মুখপাত্র বলেন, আবুবকর সিদ্দিককে পাওয়া গেলেও এ ঘটনার পেছনে কারা ছিল, তা বের করার জন্য এখন পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। এজন্য তার দেয়া তথ্য পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

অপহরণের প্রায় ৩৫ ঘণ্টা পর গত বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে মিরপুর আনসার ক্যাম্পের কাছে সিদ্দিককে ছেড়ে দেয় অপহরণকারীরা। রাত দেড়টার দিকে কলাবাগানে তল্লাশির সময় তাকে পায় পুলিশ। শুক্রবার তিনি নারায়ণগঞ্জের আদালতে এ ব্যাপারে জবানবন্দি দেন। ওই জবানবন্দিতে দেয়া তথ্য ঘটনার মোটিভ উদ্ধারে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছে পুলিশ। সিদ্দিক অপহরণের ঘটনার পর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার শেখ মুহম্মদ মারুফ হাসানের নেতৃত্বে গঠিত পাঁচ সদস্যের কমিটির অন্যতম সদস্য মনিরুল ইসলাম বলেন, পুলিশ আদালতে দেয়া তার জবানবন্দি আমলে নিয়ে গুরুত্বসহকারে মামলাটি তদন্ত করছে। তিনি আরো বলেন, ‘তার জবানবন্দির ভিত্তিতে আমরা কিছু বিষয় অনুমান করতে পারছি। তবে তদন্তের স্বার্থে এগুলো বিস্তারিত বলা যাবে না।’

এদিকে গতকাল বিকালে ফতুল্লার ভূঁইগড়ে অপহরণের স্থান ও আবুবকর সিদ্দিকের কর্মস্থল হামিদ ফ্যাশনসের কারখানা পরিদর্শন করেছে পুলিশ সদর দফতরের পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি। এ সময় কমিটির প্রধান ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার শেখ মো. মারুফ হাসান, সদস্য সচিব নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সাজ্জাদুর রহমান, কমিটির সদস্য ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার মো. মনিরুল ইসলাম, র্যাব-৩-এর উপপরিচালক মেজর মো. সাদিকুর রহমান ও পুলিশ সদর দফতরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবদুল মান্নান উপস্থিত ছিলেন।

গত বুধবার বিকালে ফতুল্লার দাপা এলাকায় পোশাক কারখানা থেকে ঢাকায় ফেরার পথে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের ভূঁইগড় এলাকার ভূঁইয়া ফিলিং স্টেশনের সামনে আবুবকর সিদ্দিককে অপহরণ করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় রিজওয়ানা বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। অপহরণের ৩৫ ঘণ্টা পর কলাবাগান থানা পুলিশ তাকে খুঁজে পায় ও পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*